মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়নের আলু রফতানি শুরু

এশিয়া মহাদেশের অন্যতম উন্নত দেশ মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের তত্ত্বাবধানে কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের (বিএডিসি) উৎপাদিত আলু রফতানি শুরু হয়েছে।

এ লক্ষ্যে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান ‘ন্যানো গ্রুপ’ ও ‘বিএডিসি’-এর মধ্যে আলু উৎপাদন ও রফতানিবিষয়ক চুক্তি হয়।

চুক্তি অনুযায়ী বিএডিসি এ পর্যন্ত চারটি কনটেইনারের মাধ্যমে মোট ১১১ মেট্টিকটন ডায়মন্ড জাতের আলু মালয়েশিয়ায় রফতানি করেছে। মালয়েশিয়ার আমদানিকারক কোম্পানি মাইডিন মালয়েশিয়া, চিন হুয়াত ট্রেডিং ও টেনবিলি গ্রুপ এ আলু আমদানি করে।

বিএডিসির ইতিহাসে এটাই সর্ব প্রথম আলু রফতানি। রফতানি করা এসব এ আলু বগুড়া, পঞ্চগড় ও সিরাজগঞ্জ থেকে সরবরাহ করা হয়েছে।

বিএডিসির মানসম্মত বীজ আলু উৎপাদন, সংরক্ষণ ও কৃষক পর্যায়ে বিতরণ জোরদারকরণ প্রকল্পের আওতায় চুক্তিবদ্ধ চাষ বা কনট্রাক্ট ফার্মিংয়ের মাধ্যমে ডায়মন্ড জাতের উন্নতমানের এ আলু উৎপাদিত হয়েছে।

এদিকে মালয়েশিয়া প্রতিবছর প্রায় ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের আলু আমদানি করে থাকে। এর মধ্যে অর্ধেকের বেশি আলু আমদানি করে চীন থেকে। মালয়েশিয়ার অন্যান্য প্রধান আলু আমদানিকারক দেশগুলো হলো- বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়া।

বাংলাদেশ ২০১৯-২০ অর্থবছরে মালয়েশিয়াতে মোট ৯.১ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের আলু রফতানি করে। মালয়েশিয়ায় আলু রফতানির ক্ষেত্রে ২০১৯ সাল অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে আলু রফতানি সম্প্রসারণের লক্ষ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিল এবং বাংলাদেশ পটেটো এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সমন্বয়ে একটি প্রতিনিধিদল মালয়েশিয়া সফর করে।

প্রতিনিধিদলকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশনের বাণিজ্যিক উইং মালয়েশিয়ার প্রধান আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সভায় মিলিত হয় এবং আমদানিকারকদের চাহিদা মোতাবেক উৎকৃষ্ট মানের আলু সরবরাহের নিশ্চয়তা দেয়। এর ফলে মালয়েশিয়াতে আলু রফতানি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়ে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৮.৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়।

মালয়েশিয়াতে আলুর পাশাপাশি অন্যান্য কৃষিপণ্য রফতানিও বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম আট মাসে (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) সময়ে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশের কৃষিপণ্য রফতানি আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় শতকরা প্রায় ৫০ ভাগ বৃদ্ধি পেয়ে ৬০ মিলিয়ন ডলার অতিক্রম করে। কৃষিপণ্যের মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে মালয়েশিয়াতে বাংলাদেশের বাঁধাকপি রফতানি উল্লেখযোগ্য্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

কৃষিপণ্যের সঙ্গে সঙ্গে অন্যান্য প্রচলিত ও অপ্রচলিত পণ্য রফতানি সম্প্রসারণে বাংলাাদেশ হাইকমিশনের নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

বাংলাদেশ হাইকমিশন মনে করে, আলু রফতানিতে কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিএডিসির মতো একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ নিঃসন্দেহে একটি মাইলফলক, যার মাধ্যমে বাংলাদেশের পণ্য রফতানিতে এক নবদিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে।