প্রবাসীদের লা’শ বিনা খরচে দেশে আনার দাবি

বিদেশে গিয়ে মৃ;ত্যুর পর প্রবাসী বাংলাদেশিদের লা;শ বি’না খরচে দেশে আনার দাবি জানিয়েছে প্রবাসীরা। দেশে থাকা পরিবারের আর্থিক স্ব’চ্ছলতা ফেরানোর পাশাপাশি দেশের অর্থনীতি স;চলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন প্রবাসীরা। তবে তাদের মৃ;ত্যুর পর ম;রদেহ দেশে পাঠাতে পড়তে হয় নানা ভো;গান্তিতে। লা;শ ব;হনের খরচ জোগাড় করতে হা;ফিয়ে ওঠেন প্রবাসে থাকা আত্মীয় এবং সহকর্মীরা। উপসাগরীয় দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে প্রতিবছর লা;শ হয়ে দেশে ফেরেন প্রায় ৫০০ প্রবাসী বাংলাদেশি। একেকটি ম;রদেহ দেশে পাঠাতে বিভিন্ন প্র’ক্রিয়াসহ পরিবহন খরচ আসে প্রায় ২ লক্ষ টাকা। ম;রদেহ পরিবহনের এই অর্থের যোগান দিতে প্রবাসীদের দ্বা’রে দ্বা’রে ঘোরেন স্বজনরা। বিভিন্ন সময় সামাজিক সংগঠনগুলো এগিয়ে এলেও অধিকাংশ ম;রদেহ দেশে ফিরে প্রবাসীদের চাঁ’দার টাকায়। পরিবহন খরচ জো’গাড় না হলে দীর্ঘদিন পর্যন্ত ম;রদেহ পড়ে থাকে বিভিন্ন হাসপাতালের ম;র্গেই। পরিবারের স’ম্মতি পেয়ে কোনো কোনো ম;রদেহ স’মাহিত হয়ে যায় প্রবাসে। কো;ভিড-১৯ সময়কালীন সংযুক্ত আরব আমিরাতে স;মাহিত হয়েছে প্রায় ১৯২ প্রবাসীর ম;রদেহ। বাংলাদেশের জাতীয় বিমান সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স একসময় বি’নাখরচে আমিরাত থেকে প্রবাসীদের ম;রদেহ ব’হন করলেও বর্তমানে তা ব;ন্ধ রেখেছে। এমনকি মরদেহ পাঠাতে বিমানের টিকিট পান না বলেও অ;ভিযোগ প্রবাসীদের। তবে কোনো কোনো নিঃ;স্ব প্রবাসীর মরদেহ পাঠাতে বিশেষ স’হযোগিতা দিয়ে থাকে বাংলাদেশ দূতাবাস ও ক’নস্যুলেট। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই প্রবাসী জহিরুল ইসলাম বলেন, অ;সহায় প্রবাসীদের লা;শ দেশে পাঠাতে অনেক বে;গ পেতে হচ্ছে। বিমান আগে প্রবাসীদের লা;শ বি’না খরচে নিয়ে যেতো, এই প্রক্রিয়াটি ব;ন্ধ করে দেওয়ায় আরো বেশি ভো;গান্তিতে পড়েছে প্রবাসীরা। আরব আমিরাতের আল আ’ইন প্রবাসী সিআইপি শেখ ফরিদ বলেন, এই প’রিস্থিতি থেকে উ’ত্তরণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হ;স্তক্ষেপ প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ বিমান যখন ক্ষ;তির মু;খোমুখী থাকে, লো;কসান থাকে তখন সরকার ভ;র্তুকি দেয়। সরকারের দেওয়া ভ;র্তুকির এই টাকা জনগণের, প্রবাসীদের। জনগণের টাকায় যদি বিমানকে ভ;র্তুকি দেওয়া হয় তবে বিমানেরও উচিত প্রবাসীদের লা;শ বি’না খরচে ব’হন করা।