ট্রানজিট যাত্রীরা কুয়েত ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে অবতরণ করতে পারবে না

ট্রানজিট যাত্রীদের কুয়েত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করার অনুমতি নেই

নাগরিক বিমান পরিবহণ অধিদপ্তরের অপারেশন বিভাগের পরিচালক মনসুর আল-হাশেমি ট্রানজিট যাত্রীদের কুয়েত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রবেশে বাধা দেওয়ার নির্দেশনা জারি করেছেন।

আল-কাবাস জানিয়েছে, স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় ১৯ ফেব্রুয়ারি একটি চিঠি জারি করেছে, যাতে বলা হয়েছে যে ট্রানজিট যাত্রীদের বিমান থেকে নামতে এবং কুয়েত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয় না।

সংযোগকারী বিমানটি ধরতে ইচ্ছুক যাত্রীদের কুয়েত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রবেশে বাধা দেওয়া হবে।

দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা রক্ষায় এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

এদিকে কুয়েত সংসদীয় কমিটির সি;দ্ধান্তের ভিত্তিতে ম;হামা;রি করোনা প্রতিরোধে দেশটিতে এখন আর কা;রফি;উ জা;রি করা হবে না।

তবে বন্ধ থাকবে স্থল ও নৌবন্দরের কার্যক্রম।

রেস্তোরাঁগুলোতে বসে আর খাওয়া-দাওয়ার সুযোগ নেই, নিতে হবে পার্সেল, যা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে।

বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০ মার্চ পর্যন্ত কুয়েত প্রবেশে নি;ষেধা;জ্ঞা আ;রোপ করেছে সরকার। কেবল স্থানীয় নাগরিক, তার নিকটতম আত্মীয়সহ বাসার কাজে নিয়োজিত গৃহকর্মীরা প্রবেশ করতে পারবেন।

করোনা মোকাবিলায় কুয়েতে এক একবার এক এক রকম নিয়ম চালু হচ্ছে। এবার জানা গেল দেশটিতে আপাতত আর কা;রফি;উ জারি করা হবে না। তবে কিছু বিধিনিষেধ থাকবে ঠিকই।

স্থানীয় গণমাধ্যম আরব টাইমস জানায়, ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০ মার্চ পর্যন্ত রেস্তোরাঁ ও কাফেগুলোতে বসে খাওয়ার পরিবর্তে ডেলিভারি সার্ভিসের অনুমতি দিয়েছে সরকার। তাছাড়া বর্তমানে সন্ধ্যা ৮টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত সব রকম বাণিজ্যিক কার্যক্রম, সেলুন, স্পা ও জিম বন্ধ রয়েছে। এদিকে স্থল ও নৌবন্দরের সব কার্যক্রম পরবর্তী ঘোষণা দেয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।