হঠাৎ করেই সোমবার (১ এপ্রিল) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে একটি চিঠির ছবি। যেখানে দেখা যায়, একজন বাড়িওয়ালা ঈদ উপহার হিসেবে ভাড়াটিয়ার বাড়িভাড়া মওকুফ করে দিয়েছেন।

বাড়িওয়ালা স্বয়ং এই চিঠিটি ভাড়াটিয়াদের উদ্দেশে পাঠিয়েছেন। যেখানে আরও লেখা ছিল, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় ঈদ উপলক্ষে এক মাসের ভাড়া মওকুফ। নিচে রূপালি হাউজিংয়ের কথা লেখা ছিল।

ফেসবুকে এক ব্যক্তি সেই চিঠিটি নিজ আইডিতে শেয়ার করে লেখেন, ‘আমার বাড়িওয়ালার পক্ষ থেকে ঈদ উপহার… আমি আমার ঢাকা শহরের এই ছোট্ট জীবনে কেউ কখনো এমন উপহার পেয়েছেন কি না জানি না এবং শুনিনি কখনো- আমি অন্তত পাইনি। সম্পদের পাশাপাশি সুন্দর একটা আত্মা থাকাটাও জরুরি একজন প্রকৃত মানুষ হওয়ার জন্য। আল্লাহ ওনাকে নেক হায়াত এবং দুনিয়া ও আখিরাতে উত্তম প্রতিদান দান করুন।’

সামাজিক মাধ্যমে সকাল থেকেই হু হু করে ছড়িয়ে পড়তে থাকে চিঠির ছবিটি। অনেকেই বাড়িওয়ালার মানবিকতা দেখে প্রশংসায় ভাসান উক্ত মালিককে। দিনভর পোস্টের পর পোস্ট। কিন্তু সবশেষে জানা গেল, আসলে সেটি ভুয়া চিঠি। অবশ্য পোস্টকারী চার ঘণ্টা পর নিজেই ফেসবুক থেকে সেটি সরিয়ে নেন।

সাংবাদিকেরা সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জেনেছে, এমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি। বাড়িভাড়া মওকুফের বিষয়টি জানেন না ওই বাড়ির মালিক নিজেই। তবে ওই বাড়ির কেয়ারটেকার জানিয়েছেন, বাড়িটিতে কোনো ভাড়াটিয়া কেউ থাকেন না। ওই ভবনে যারা বাস করেন তারা সবাই মালিকের আত্মীয়। তাই ভাড়া মওকুফ করার প্রসঙ্গ আসে না।

রূপালি হাউজিংয়ের মালিকপক্ষের সুজন নামের এক ব্যক্তি মঙ্গলবার দুপুরে বলেন, এমন একটি চিঠি কিভাবে ছড়ানো হয়েছে, সেটি আমাদের জানা নেই। এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি।

তবে আলিমুর রহমান বলছেন, বাড়িওয়ালা বিষয়টি গোপন রাখতে চান।